রাউজান নিউজ

চট্টগ্রামে হাটহাজারীতে কেরোসিন ঢেলে এইচএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

হাটহাজারী সংবাদদাতা ঃ
চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলায় গায়ে কেরোসিন ঢেলে জান্নাত নুর ফাহিমা (১৮) নামে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। গত (৮-মে) মঙ্গলবার রাত ৬টার দিকে হাটহাজারী উপজেলার দক্ষিণ বুড়িশ্চরের কালামিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। পরে মধ্যরাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে মারা যায়। ফাহিমা দক্ষিণ বুড়িশ্চর শাহজাহান মিয়ার মেয়ে।

একাদিক সুত্রে জানায়ায়, গৃহশিক্ষক ফেসবুকে তার আপত্তিকর ছবি দিয়ে বিরূপ মন্তব্য করায় অপমানে উপজেলার বুড়িশ্চর শেখ মোহাম্মদ সিটি কর্পোরেশন কলেজের এই শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

পারিপারিক সুত্রে জানায়ায়, দীর্ঘদিন ধরে ফাহিমা ও তার বড় বোনকে বাসায় এসে প্রাইভেট পড়াতেন চট্টগ্রাম সিটি কলেজে অধ্যয়নরত এক গৃহশিক্ষক এম আলম কুতুবী। এক পর্যায়ে ফাহিমার বড় বোনের বিয়ে হয়ে যায়। ফাহিমাকে পড়ানোর একপর্যায়ে তাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে মোবাইল ফোনে ও বিভিন্নভাবে বিরক্ত করে আসছিলে ওই শিক্ষক। তার বাড়ি কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলায় বলে জানা গেছে।

বিষয়টি ফাহিমা তার বাবা-মাকে জানালে ওই শিক্ষককে বের করে দেয়া হয়। এতেও থামেননি ওই শিক্ষক। ফাহিমাকে মোবাইল ফোনে বিরক্ত করা শুরু করেন। শুধু তাই নয়, ফাহিমার বাবার মোবাইল ফোনে কল করে তার মেয়েকে তার কাছে বিয়ে দেয়ার জন্য হুমকি-ধামকিও দেন গৃহশিক্ষক আলম কুতুবী।

অারো জানায়ায়, গৃহশিক্ষক এম আলম কুতুবীর প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ফাহিমার নামে ফেসবুকে একটি ভুয়া আইডি খুলেন। পরে এ আইডিতে ফাহিমার বিভিন্ন আপত্তিকর ছবি পোস্ট করে বিরূপ মন্তব্য করেন।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার পরীক্ষা শেষে কলেজ থেকে এসে আছরের নামাজ পড়ে ও কোরআন তেলাওয়াত শেষে মাগরিবের নামাজের অজু করতে যাবে বলে বাথরুমে গিয়ে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। দ্রুত তাকে উদ্ধার করে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চমেকে নিয়ে গেলে বুধবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।

গৃহশিক্ষক এম আলম কুতুবীর