রাউজান নিউজ

অতিরিক্ত জলপানে ক্ষতিকর দিক গুলা

রাউজান নিউজ ডটকম ডটবিডি ডেস্ক:-

কথায় আছে জলই জীবন৷ কিন্তু, অতিরিক্ত জলপানের ফলে শরীরে দেখা দিতে পারে নানা সমস্যা৷ জল দেহকে টক্সিনমুক্ত রাখতে সাহায্য করে৷ যা(টক্সিন) শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর৷ অনেকসময় বিভিন্ন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা দিনে ৮-১০ গ্লাস জল খাওয়ার পরামর্শ দেন৷ আর, এই অতিরিক্ত জলই হতে পারে মাথাব্যাথা, লেগ পেনের কারণ৷ ভেবে দেখেছেন কখনও? হ্যাঁ৷ এমনটাও হতে পারে৷

ডাঃ শিখা শর্মার(নিউ দিল্লিতে ওয়েলস অ্যান্ড নিউট্রিশন এক্সপার্ট) মতে, অতিরিক্ত মাত্রায় জলপান কিডনির কার্যক্ষমতাকে নষ্ট করতে পারে৷ প্রয়োজনের অতিরিক্ত জল কার্ডিয়াক মাসলগুলিতে চাপ সৃষ্টি করে৷ সাথে সাথে রক্তচাপকে কমিয়ে নিয়ে আসতে পারে৷ নীচে অতিরিক্ত জলপানের কয়েকটি অসুবিধার কথা আলোচনা করা হল,

১)অতিরিক্ত জল দেহে তারল্যের ভারসাম্যকে নষ্ট করতে পারে৷ শরীরে সোডিয়ামের মাত্রাকে কমিয়ে নিয়ে আসতে পারে৷ সোডিয়াম যা শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী উপাদান৷ যার ফল হিসাবে বমি বমি ভাব, ক্লান্তি ইত্যাদি উপসর্গ দেখা দিতে পারে৷

২)শরীরে জলের মাত্রা কম হলে বা বেশী হলে, দুই কারণেই মাথা ব্যাথা দেখা দিতে পারে৷ বেশি জল খাওয়ার ফলে রক্তে লবণের পরিমান কমে যেতে পারে৷

৩)বেশী মাত্রায় জলপান শরীরে ইলেক্ট্রোলাইট মাত্রাকে কমিয়ে দেয়৷ এর ফলে দেখা দিতে পারে মাসল ক্রাম্পিং৷

৪)ক্লান্তি ও অবসাদের কারণ হতে পারে শরীরে অতিরিক্ত জলের উপস্থিতি৷ বেশী জল খেলে কিডনিকে বেশী কাজ করতে হবে যা কিডনির উপর অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করবে৷ এর ফলে শরীরে স্বাভাবিক হরমান ক্ষরণ প্রক্রিয়ায় সমস্যা দেখা দেবে৷ এর কারণ, হিসেবে অবসাদ এবং ক্লান্তি দেখা দিতে পারে৷

৫) শরীরে পটাশিয়মের ঘাটতির ফলে চেস্ট পেন, লেগ পেন, ইরিটেশন ইত্যাদি দেখা দিতে পারে৷ পটাশিয়ামের ঘাটতির মূল কারণ হতে পারে জল৷ শরীরে জলের চাহিদা এক এক জনের ক্ষেত্রে এক এক রকম হয়৷ তাই, সবথেকে ভাল হয় যদি আপনি একজন ডক্টরকে দিয়ে পরীক্ষা করিয়া নেন৷ শরীরকে ডিহাইড্রেট রাখা জরুরি৷ তাই, যখনই তেষ্টা অনুভব করবেন তখনই জল খান৷