রাউজান নিউজ

রাউজানে বিকাশের ফাঁদে যুবক প্রতারণা শিকার নগদ টাকা!

আমির হামজা (রাউজান নিউজ)ঃ

রাউজান উপজেলার ঊনসত্তর পাড়া পাল পাড়া গ্রামের  এক যুবক বিকাশের লোভনীয় অফারের ফাঁদে পড়ে নগদ ১৯ হাজার ৩শত টাকা হারিয়ে সর্বহারা, সেই পাল পাড়া গ্রামের মৃত সুশিল পালের ছেলে পিটু পাল(২২) আজ শনিবার (৩০-ডিসেম্বর) দুপুর সময় প্রতারণার জাল চক্র জড়িয়ে পড়েন তিনি। সকালে তার মোবাইলে এক লোক ভুয়া এসএমএসের মাধ্যমে ৬ হাজার ৫শ টাকা পাটিয়ে, পিটু’কে ফোন করেন বিভিন্ন ভাবে (কৌশলে) বলেন তুমি ১৬ লক্ষ টাকা বিজয়ী হয়েছ, কিন্তু বলা হয়েছে কিছু সরকারি ভ্যাট অাছেন তা পিটু’কে অাদায় করতে হবে এক পর্যায়ে পিটু রাজি হলেন ১৬ লক্ষ টাকার পাওয়া অাশায়, প্রথমে ৫ হাজার আবার ১৪ হাজার বিকাশে পাঠান, মোট ১৯ হাজার ৩শ টাকা পাঠিয়ে দেওয়ার পরে অাবারও বলা হয় অার ১৪ হাজার টাকা দেওয়ার জন্য, তখন বিকাশ ব্যবসায়ী লোকমান বুঝে ফেলেন সেই ফাঁদের চক্র পড়েছেন, পিটুর মোবাইল টেনে নিয়ে প্রতারক এর সাথে কথা বলেন লোকমান, লোকমান বিষয় জানতে চাইলে তাকে পুলিশের ভয় দেখান প্রতারক, অারো বলেন মিয়া  ফাঁদে বুঝেনা, সময়ের মধ্যে মোবাইল বন্ধ করে দেন প্রতারণাকারী। তখন পিটু কান্নাকাটিতে ভেঙ্গে পড়েন। স্থানী লোকজন তার অবস্তা দেখে সান্তনা দেওয়ার জন্য চেষ্টা করেন।

সরজমিনে রিপোর্ট করার সময় রাউজান নিউজ’কে সাধারণ মানুষ জানান, বিকাশকে ঘিরে সারাদেশে প্রতারণার জাল ছড়িয়ে পড়ছেন। কিছু দিন অাগেও রাউজানে কদলপুর গ্রামে এমন ফাঁদে পড়েন এক লোক। কিছুতেই থামানো যাচ্ছে না এর মাধ্যমে লোভনীয় নানা প্রতারণা ও বন্ধ হচ্ছে না। বিভিন্ন প্রকার কায়দায় কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে বিকাশের মাধ্যমে। বিকাশের মাধ্যমে প্রতারণাকারীদের খপ্পর থেকে রেহাই পাচ্ছেন না কোন শ্রেণী-পেশার মানুষ। প্রতারণার ধরনের মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ইস্যুতে ‘আপনি চূড়ান্ত বিজয়ী’ বলে নির্ধারিত নম্বরে টাকা পাঠানোর অফার। সংশ্লিষ্ট বিষয়ের সঙ্গে মিল রেখে অফার অনুযায়ী বিকাশের মাধ্যমে টাকা পাঠানোর কোথাও অনুরোধ আবার কোথাও বাধ্য করা হচ্ছে। অফার অনুযায়ী টাকার পরিমাণ সর্বনিম্ন ৫০০০ হাজার টাকা থেকে সর্বোচ্চ কোটি টাকা পর্যন্ত রয়েছে। অপরিচিত প্রতারকের পিটু পাল’কে ফোনে এই বিকাশ নম্বারে ( ০১৭৪৬ ১৯৯৩৫৬/০১৭৪৩ ৫৯১৪৭৯) টাকা পাঠাতে বলেন।