রাউজান নিউজ

রাউজানে বন্যা পরিস্থিতি অবনতি

মীর আসলাম (রাউজান নিউজ)ঃ

কাপ্তাই থেকে নেমে আসা পানির চাপে রাউজানের দক্ষিনাংশের সাতটি ইউনিয়নে বন্যা পরিস্থিতি হয়েছে। আজ (২৫ জুলাই) বৃষ্টি কম থাকলেও কাপ্তাই এর পানির সাথে জোয়ারের পানি যোগ হয়ে সাতটি ইউনিয়নের অনেক বাড়ী ঘরে পানি ডুকেছে। রাস্তাঘাট দিয়ে কোমর পানি গড়িয়ে পড়ায় যানবাহন চলাচল সম্পূর্ণ ভাবে বন্ধ হয়ে গেছে। স্থানীয়রা জানিয়েছে নোয়াপাড়া, বাগোয়ান, উরকিরচর, পশ্চিম গুজরা, বিনাজুরী, পূর্বগুজরা, পাহাড়তলী ইউনিয়নের কর্ণফুলী ও হালদা নদীর তীরে থাকা অনেক বাড়ী ঘর এখন হাঁটু ও কোমর পানিতে নিমজ্জিত। অনেক পরিবার ঘর থেকে বের হয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। বাগোয়ানের আওয়ামীলীগ নেতা আরিফুল আলম জানিয়েছেন পাঁচখাইন গ্রামের বেশ কয়েকটি বসত ঘর কর্ণফুলী নদীতে ভেঙ্গে পড়েছে। নোয়াপাড়া ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বাবুল মিয়া বলেছেন ইউনিয়নের বেশির ভাগ রাস্তায় কোমর পানি গড়াচ্ছে। বাড়ী ঘরে পানি ডুকেছে।

কছুখাইন, মোকামী পাড়া এলাকার অনেক বাড়ী এখন নদী গর্ভে যাওয়ার অপেক্ষায় আছে। উরকিরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছৈয়দ আব্দুল জব্বার সোহেল বলেছেন তার ইউনিয়নের উরকিরচর, খলিফারঘোনা, মিরাপাড়া, পূর্ব উরকিরচর ও আবুরখীল গ্রাম পানিতে ডুবে আছে। জানা যায়, পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের আজিমের ঘাট, কাছিমনগর, রূপচান্দনগর, ডোমখালী গ্রামে হালদার ভাঙ্গনে ইতিমধ্যে তলিয়ে গেয়ে কয়েক একর জমি। নদীতে ভেঙ্গে পড়েছে চলাচলের গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা। স্থানীয়রা জানিয়েছে পূর্বগুজরা ও রাউজান ইউনিয়ন নদীর পাড়ে না হলেও সেখানেও অনেক বাড়ী ঘরে পানি ডুকেছে। ডুবে গেছে রাস্তাঘাট মাছের পুকুর। একই অবস্থা হয়েছে বিনাজুরী ইউনিয়নের, পশ্চিম বিনাজুরী, লেলাংগরা, মধ্য বিনাজুরী, রাউজানের মোহাম্মদপুর গ্রাম ও পৌরসভার ছিটিয়াপাড়া ও কাজী পাড়ায়। রাউজান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এহেছানুল হায়দর চৌধুরী বলেছেন স্থানীয় সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীসহ তিনি বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে বলা হয়েছে। নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম হোসেন বলেন আমি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে সার্বক্ষনিক এই নিয়ে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছি। প্রাকৃতি এই দুর্যোগে সকলে সতর্ক থাকার জন্য বলা হয়েছে।