রাউজান নিউজ

পশ্চিম গুজরা শিশু নিকেতনের ছোট্ট শিশুদের বড় স্বপ্নের সাজ

মীর আসলাম.রাউজাননিউজ.
ছোট্ট স্কুল। ক্ষুদে শিক্ষার্থী। বয়স সবার ছয় থেকে ১২। এসব শিশুর চাওয়া পাওয়ার জুড়ি নেই। ছোট বয়সে এই সব ক্ষুদে শিক্ষার্থীর মনের বাসনা বিশাল। মনের মধ্যে লালন করছে আকাশ ছোঁয়া আকাংঙ্খা। ১১ ফেব্র“য়ারী দক্ষিণ রাউজানের ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠান পশ্চিম গুজরা শিশু নিকেতনে ছিল বার্ষিক বনভোজন ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। এই অনুষ্ঠানে শিশুদের বলা হয়েছিল যেমন খুশি তেমন সাজে সাজতে। সময় দেয়া হয়েছিল এক ঘন্টা। এই এক ঘন্টার মধ্যে অনেকেই বাড়ী গিয়ে এসেছে নিজেদের মত করে সেজে। ্সাথে এনেছে সাজের সাথে মানানসই উপকরণ। স্কুলের শিক্ষকরা পছন্দের সাজে সাজিয়ে আসা ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের একের পর এক নিয়ে আসেন অনুষ্ঠানের মঞ্চে। অনুষ্ঠানের শত শত দর্শক অভিভাবক ক্ষুদে শিক্ষার্থীর সাজ দেখে হয় মুগ্ধ। এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া শিশুদের কাছে অনেকেই জানতে চান কেন তাদের এই সাজ পছন্দের চটপট উত্তর দিয়ে নিজেরা প্রকাশ করেছে ছোট্ট মনের ভবিষৎ এর বিশাল আকাংঙ্খার কথা। বর্তমান সময়ের দেশের প্রধান মন্ত্রীর সাজে শাড়ী চশমা পড়ে মঞ্চে হাজির হয়েছিল ৭ বছরের শিশু শিক্ষার্থী সুরাইয়া অফরিন নুরী। দর্শকদের প্রশ্নের প্রতিক্রয়ায় বলেন আমি প্রধান মন্ত্রী হয়ে দেশকে এগিয়ে নেব। সোনার বাংলা করবো। তিন ক্ষুদে শিক্ষার্থী রায়হান, আলফাজ, আনজির হাতে ও কাঁধে খেলনা অস্ত্র নিয়ে সেজে আসছিল দেশের বীর সন্তান মুক্তিযোদ্ধার সাজে। তাদের প্রতিক্রিয়া ছিল দেশের শত্র“ যারা তাদের রুখবে এই হাতিয়ার দিয়ে। রক্ষা করবে মাতৃভূমি বাংলাদেশ। চমৎকার সাজে কৃষক সেজেছিল ছোট্ট সোনামনি পিন্স ঘোষ মিছিল। তার পড়নের লুঙ্গি আর গেঞ্জিতে হাল্কা কাঁদা, মাথায় গামছা, এক হাতে কোদাল অন্য হাতে ভাতের কোটা নিয়ে পরিশ্রান্ত শরীরে ্েষতের এক জন গ্রামীণ কৃষক কিভাবে জমির পাশে ভাত খায় সেই দৃশ্যটি দেখায় নিজেই কৃষক সেজে। তার প্রক্রিয়ায় বলে আমি কৃৃষকদের ভালবাসি তারা আমাদের জন্য খাদ্য উৎপাদন করেন। এই ছাড়া এই অনুষ্ঠানে অনেক সাজের মধ্যে জঙ্গলীর সাজ নিয়েছে ইহসান রহমান আলপি, গাঁয়ের বধু সেজেছে আশফাকুর নাহার মাহিয়া ও সুমাইয়া সালমা। বিচারক সেজে এসেছে ভুমিকা ঘোষ। কোমলমতি শিশুদের এই সাজ সকল দর্শকদের নজর কেড়েছে। স্কুলটির অধ্যক্ষ জিন্নাত আলী বলেছেন ছোট্ট শিশুদের মনে মধ্যে লুকিয়ে থাকা স্বপ্নের বাস্তবে রূপ দেখার আশা শিক্ষক অভিভাবক সবার। এই দিকে লক্ষ্য রেখে এখানে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের গড়ে তোলা হচ্ছে। ওই অনুষ্ঠানে অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সমাজ সেবক প্রবাসী নুর মোহাম্মদ, ব্যাংকার মোহাম্মদ ইসহাক, মোহাম্মদ আবদুল হামিদ, সাংবাদিক মীর মোহাম্মদ আসলাম, প্রবীণ ফুটবলার আবদুর রহমান, নিদল বড়–য়া, স্কুলের পরিচালক মাস্টার কামাল উদ্দিন, জসিম উদ্দিন মেম্বার, মফিজুর রহমান, মোহাম্মদ রফিক,মোহাম্মদ সোয়েব, মোহাম্মদ ওসমান গণি,মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন। অনুষ্ঠান উপস্থিত ছিলেন স্বপ্না সেন, তাপসী দেওয়ানজী, নুরজাহান বেগম, ওমর ফারুক, অপি বড়–য়া, আবদুল মোবিন, জাহেদুল ইসলাম, মুজিবুল করিম প্রমূখ। অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে প্রতিযোগিদের পুরুষ্কার প্রদান করা হয়