রাউজান নিউজ

ফিদেল কাস্ত্রোর স্মরণে চোখের জল ফেলছেন কিউবা সহ বিশ্ববাসি

আন্তর্জাতিক ডেক্স (রাউজান নিউজ)ঃ

সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব তথা দিনবদলের স্বপ্নের ফেরিওয়ালা ফিদেল কাস্ত্রোর মৃত্যুতে কিউবা তো বটেই শোকগ্রস্ত হয়ে পড়েছে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ। রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে শোক পালনের পাশাপাশি মহান এই নেতার জন্য নীরবে চোখের জল ফেলছেন অনেকেই। সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। ব্যক্তিগত পর্যায়ে কেউ কেউ কাস্ত্রোর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করছেন। শুধু কিউবাতেই নয়, আলজেরিয়া সরকার ৮ দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করেছে। খবর বিবিসি ও রয়টার্স।

কার্যত শনিবার থেকে চোখের জল ফেলছে কিউবার জনগণ। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে ৯ দিনের রাষ্ট্রীয় শোক শুরু হয়েছে রোববার থেকে। এই ৯ দিনের প্রায় সব ধরনের আনন্দ-উল্লাসের আয়োজন থেকে নিজেদের বিরত রাখবে কিউবার জনগণ। দেশটির জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। এ ছাড়া সামাজিক জীবনযাপনেও বেশকিছু নির্দেশনা জারি করা হয় সরকারের পক্ষ থেকে। সীমিত পরিসরে সভা-সমাবেশ চলছে ও পানশালাগুলোয় মদ বিক্রি বন্ধ থাকবে। সংগীতানুষ্ঠানের কনসার্ট হবে না কোথাও। এ ধরনের আচারের মধ্য দিয়ে কিউবাবাসী তাদের প্রিয় নেতার শোক পালন করবেন।

এদিকে শনিবার কাস্ত্রোকে সম্মান জানাতে হাভানার রাস্তায় রাস্তায় অনেককে স্লোগান দিতে দেখা গেছে, ‘আমি ফিদেল!’ সংবাদপত্রেও রঙিন কালি ব্যবহার করা হয়নি। হাভানা বিশ্ববিদ্যালয়ে শত শত শিার্থীকে শনিবার কিউবার বিশাল পতাকা দুলিয়ে ‘ভিভা ফিদেল’, ‘ভিভা রাউল’ স্লোগান দিতে দেখা যায়। ফিদেল এই বিশ্ববিদ্যালয়েরই ছাত্র ছিলেন। রাজনীতির পর কাস্ত্রোর প্রিয় ছিল বেসবল খেলা। ৯ দিন ধরে রাষ্ট্রীয় শোক চলার সময় সব পর্যায়ের বেসবল খেলাও বন্ধ থাকবে বলে ঘোষণা করেছে দেশটির বেসবল ফেডারেশন। অন্যদিকে তাকে শ্রদ্ধা জানাতে রাজধানী হাভানা এবং পূর্বাঞ্চলীয় সান্তিয়াগো শহরে বিশাল সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

জানা গেছে, জনগণের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য রাজধানী হাভানার হোসে মার্তি মেমোরিয়ালে ২৮ ও ২৯ নভেম্বর তার ভস্ম রাখা হবে। ২৯ তারিখ বিকালে হাভানায় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এর পরদিন থেকে শুরু হবে কাস্ত্রোর ভস্মের দেশব্যাপী যাত্রা। ১৯৫৯ সালে কিউবা বিপ্লবের সময় যে পথে দেশব্যাপী যাত্রা করেছিলেন কাস্ত্রো, সে পথেই যাবে এবারের যাত্রা। এই শেষযাত্রার পরিসমাপ্তি হবে সান্তিয়াগোর সান্তা ইফিজেনিয়া সমাধিস্থলে। সেখানে শায়িত আছেন হোসে মার্তিসহ কিউবান বিপ্লবের অনেক যোদ্ধা।

গত শুক্রবার রাত ১০টা ২৯ মিনিটে মারা যান ফিদেল কাস্ত্রো। এর ঘণ্টাখানেক পর ফিদেলের ভাই ও কিউবার প্রেসিডেন্ট রাউল কাস্ত্রো আনুষ্ঠানিকভাবে মহান এই বিপ্লবীর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন। সে সময় তিনি জানান, ফিদেলের শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী তাকে দাহ করা হবে। এ ছাড়া কাস্ত্রোর দেহাবশেষ নিয়ে দেশজুড়ে ভ্রমণের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।