রাউজান নিউজ

রাউজানের বেবী ভাই আর নেই

বিশাল জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত
রাউজান প্রতিনিধি॥

জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের হাত থেকে কৃষি পদক প্রাপ্ত প্রবীণ রাজনৈতিক রাউজান উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম চৌধুরী বেবী (প্রকাশ বেবী ভাই) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না-রাজেউন)। তিনি গত ৭ অক্টোবর হজ্বব্রত পালন করে দেশে ফিরেছিলেন। মরহুমের পুত্র আলহাজ্ব সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা জানিয়েছেন গতকাল ২৭ অক্টোবর ভোর সকালে তিনি অসুস্থবোধ করলে তাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান। গতকাল বাদে মাগরিব রাউজান বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মাঠে বিশাল জানাযা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাযায় ইমামতি করে আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসার প্রধান মুফতি মুহাদ্দিস মাওলানা অছিয়র রহমান আল কাদেরী। জানাযায় আংশ গ্রহন করেন মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীসহ মহানগর ও জেলা আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতৃবৃন্দ। এলাকার সূত্র সমূহ থেকে জানা যায়, প্রবীণ এই রাজনীতিক এলাকার সর্বস্তরের মানুষের কাছে পরিচিত ছিলেন বেবী ভাই হিসাবে। তিনি ষাট দশকে ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতির সাথে সক্রিয় ছিলেন। স্বাধীনতার পর থেকে আওয়ামীলীগে যোগদান করে আজাদী মরহুম সম্পাদক অধ্যাপক মোহাম্মদ খালেদ এর নির্বাচনী প্রচারণায় সক্রিয় ভূমিকা রেখে তাকে সাংসদ নির্বাচিত করেছিলেন। তাঁর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও নীতি আদর্শের কারণে রাউজানের বঙ্গবন্ধু আদর্শের রাজনীতিতে উৎজ্জীত করতে তিনি সক্ষম হন। বেবী চৌধুরী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করে দলটিকে তৃণমুল পর্যন্ত সংগঠিত করেন। মৃত্যুর পূর্ব সময় পর্যন্ত এই পদে থেকে তিনি সাংগঠনিক কাজ করেছেন রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর নেতৃত্বে। বেবী চৌধুরী রাউজান পৌরসভা প্রতিষ্ঠালগ্নে পৌর প্রশাসকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। পরে তিনি নির্বাচিত মেয়র হিসাবে পৌরসভার দায়িত্ব পালন করেছিলেন সফলতার সাথে। নিজের রাজনৈতিক মেধাকে কাজে লাগিয়ে বিগত ইউপি নির্বাচনে উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের নিজেদের সমর্থিত প্রার্থীকে বিজয়ী করে আনতে সক্ষম হন। তার নেতৃত্বে থাকা উপজেলা আওয়ামীলীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মী জাতীয় সংসদের নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধ থেকে দলীয় প্রার্থী এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীকে দিয়ে হ্রেটিক বিজয়ী করার গৌবর অর্জন করেছেন। প্রবীণ এই রাজনীতিকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন, মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী, বর্তমান মেয়র আ.জ.ম. নাছির, রাউজানের সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এম.এ সালাম, যুগ্ম সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, চট্টগ্রাম রেডক্রিসেন্টর চেয়ারম্যান ডা.শফিউল আজম, রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ একেএম এহেছানুল হায়দর চৌধুরী বাবুল, আঞ্জুমানের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মুহসিন চৌধুরী, গাউছিয়া হক মঞ্জিলের শাজ্জাদানশীল রাহাবায়ে আলম সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মাইজভাণ্ডারী, রাউজান উপজেলা নির্বাহী শামীম হোসেন, সহকারী কমিশনার ভূমি জোনায়েদ আহম্মদ সোহাগ, ওসি কেপায়েত উল্লাহ, আওয়ামীলীগ  নেতা কামাল উদ্দিন আহম্মদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ফজলে শহীদ চৌধুরী, রাউজান আওয়ামীলীগ নেতা ফরাজ করিম চৌধুরী, আওয়ামীলীগ নেতা ইউনুচ গনি চৌধুরী, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু, সাবেক কাউন্সিলর অনোয়ারুল ইসলাম, রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান, কাউন্সিলর কাজী ইকবাল, আলমগীর আলী, নজরুল ইসলাম চৌধুরী, নুরুল ইসলাম শাহাজান, রাউজান কৃষক লীগের সভাপতি আবুল বশর বাবুল,সম্পদক শহীদুল ইসলাম খোকন, জাতীয় পাটির নেতা মেজবাহ উদ্দিন আকবর, নাছির উদ্দিন সিদ্দিকী, রাউজান বিশ^বিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ একেএম আবদুর রশিদ, নোয়াপাড়া বিশ^বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ কফিল উদ্দিন চৌধুরী, ইমাম গজ্জালী বিশ^বিদ্যালয়ে অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ইদ্রিস, গহিরা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোস্তফা কামাল, পৌর কাউন্সিলর জানে আলম জনি, জমির উদ্দিন পারভেজ, এডভোকেট সমীর দাশ গুপ্ত, এডভোকেট দীলিপ কুমার চৌধুরী, আজাদ হোসেন, শওকত হাসান, ইউপি চেয়ারম্যানদের মধ্যে আলহাজ্ব দিদারুল আলম, শফিকুল ইসলাম, আবদুর রহমান লালু, আব্বাস উদ্দিন, লায়ন শাহাবুদ্দিন, সরওয়ার্দী সিকদার, নুরুল আবছার বাশিঁ, ভূপেষ বড়–য়া, সুকুমার বড়–য়া, সৈয়দ আবদুর জব্বার সোহেল, প্রিয়তোষ চৌধুরী, তছলিম উদ্দিন চৌধুরী, রোকন উদ্দিন, সাবেক চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম, সাবেক পৌর কাউন্সিলর এসএম আসাদ উল্লাহ, সামিমুল ইসলাম চৌধুরী সামু,পরিবেশবাদী নেতা নুরুল আবছার, গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ রাউজান শাখার সাংগঠনিক আহসান হাবিব চৌধুরী, মাউজভাণ্ডারী গাউছিয়া হক কমিটির রাউজান সমন্বয়ক শাহাজাদা মহিবুল্লাহ, ব্যবসায়ী স্বপন দাশ গুপ্ত, আজিজুল হক কোম্পানি, সৈয়দ হোসেন কোম্পানি, কামাল উদ্দিন কোম্পানি, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, বাবুল মিয়া, রাউজান ছাত্র কল্যাণ সংসদের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাদশা, হাবিবুল জাকারিয়া রাসেল, যুবলীগের নুরুল ইসলাম, কাউছার উদ্দিন লিটন, মোহাম্মদ সেকান্দর, জম্মাষ্টামী পরিষদের সচিব তপন দে, আওয়ামীলীগ নেতা নুরুন নবী, দোস্ত মোহাম্মদ,  জসিম উদ্দিন, জাহাঙ্গীর আলম, এস এম মুজিব, দিদারুল আলম, রাউজান পূজা উদ্যাপন কমিটির নেতা সুমন দে, প্রকাশ শীল, ম্যালকম চক্রবর্তী, রাউজান প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি মীর আসলাম, সাংবাদিক কামরুল ইসলাম বাবু, যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম সুমন, সারজু মোহাম্মদ নাছের, শওকত হোসেন, হাসান মোহাম্মদ রাসেল, আলহাজ¦ মঈনুদ্দিন মোস্তফা, দিপলু দে, এমরান হোসেন ইমু, অনুপ চক্রবর্তী প্রমূখ। এছাড়া শোক প্রকাশ করেছেন সেন্টাল বয়েজ অব রাউজান, আর্ন্তজাতিক মাতৃভক্তি উদযাপন পরিষদ,  বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান, রাউজান নিউজ টুয়েন্টি ফোর ডটকম, রেসকোর্স, রাউজান কবি নজরুল সাহিত্য পরিষদ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়স্থ রাউজান ছাত্র ফোরাম, ভাসিটি এডমিশন কেয়ার রাউজান, সামাজিক ও ধর্মীয় সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।